সংস্কৃতি এবং মাইথোলোজি

‘গুডফ্রাইডেতে ক্রুশবিদ্ধ হয়েছিলেন যিশু ! তাও কেন একে ‘গুড ফ্রাইডে’ বলা হয়? পেছনে রয়েছে এই অদ্ভুত ইতিহাস

আর্থিক বছরের শেষের ঠিক আগের দিনই ছুটি পেয়ে গিয়েছেন চাকুরিজীবীরা। কারণ আজ গুড ফ্রাইডে। কেন জাতীয় ছুটি থাকে এই বিশেষ দিনটিতে? তা সকলেরই জানা। বহু বছর আগে এমনই এক দিনে খ্রিস্ট ধর্মের প্রবর্তক যিশু খ্রিস্টকে ক্রুশবিদ্ধ করা হয়েছিল। খ্রিস্ট ধর্মাবলম্বীদের কাছে এই দিনটি তাই অত্যন্ত বেদনাদায়ক। কিন্তু কখনও ভেবে দেখেছেন, এমন দুঃখের দিনটিকে কেন গুড ফ্রাইডে বলা হয়ে থাকে?

 Source

জেরুজালেমের ক্যালভারিতে সেই দিনটিতে নেমেছিল শোকের ছায়া। কিন্তু কোন যুক্তিতে এই মর্মস্পর্শী দিনটিকে গুড অর্থাৎ ভাল দিন বলা হয়? খ্রিস্ট ধর্মাবলম্বীদের বিশ্বাস, এই দিনটি অত্যন্ত পবিত্র দিন। মানবজাতির স্বার্থে, সাধারণের জীবনরক্ষা করতেই আত্মবলিদান দিয়েছিলেন যিশু। আর সেই কারণেই এই দিনকে গুড ফ্রাইডে বলা হয়। তবে এ নিয়ে আরও কিছু তথ্য প্রচলিত আছে। অনেকে বলেন, গড’স ফ্রাইডে কথাটি অপভ্রংশ হয়ে গুড ফ্রাইডে হয়ে গিয়েছে। ‘গড’স ফ্রাইডে’ মানে ঈশ্বরের শুক্রবার। অর্থাৎ যিশুর শুক্রবার। তবে এ তথ্যের সত্যতা নিয়ে এখনও ধন্দ রয়ে গিয়েছে।

 Source

আবার অক্সফোর্ড ইংরাজি অভিধানের সিনিয়র এডিটর ম্যাকফার্সন বলেছেন, গুড বা ভাল শব্দটি পবিত্র দিনের বা মরশুমের ব্যাখ্যা দেওয়ার জন্য ব্যবহৃত হয়। সেই কারণেই খ্রিস্ট ধর্মগ্রন্থ বাইবেল-এ ‘গুড নিউজ’ কথাটির উল্লেখ রয়েছে। বড়দিনে ‘গুড টাইড’ কথাটিও ব্যবহার করা হয়। ক্যাথোলিক এনসাইক্লোপিডিয়াও বলছে, কথাটি গড’স ফ্রাইডে। আর সেটি এসেছে জার্মান ভাষা ‘গোটেস ফ্রেইট্যাগ’ অথবা ‘গুটে ফ্রেইট্যাগ’ থেকে। গ্রীক স্তোত্র অনুযায়ী, এই দিনটিকে ‘পবিত্র শুক্রবার’ বা ‘হোলি ফ্রাইডে’ বলা হয়।

 Source

গুড ফ্রাইডে নিয়ে সবমিলিয়ে এমনই বেশ কিছু তথ্য উঠে আসে। তবে এবার মণিপুরের মানুষদের জন্য শুক্রবারটা বিশেষ ‘গুড’ হল না। কারণ বৃহস্পতিবারই সরকার জানিয়ে দিয়েছিল, সে রাজ্যে গুড ফ্রাইডেতে কর্মক্ষেত্রে ছুটি থাকবে না। প্রশাসনের এমন সিদ্ধান্তের তীব্র নিন্দা করেছে মণিপুর খ্রিস্টান সংস্থাগুলি।

Source

Show More
BLW Artcl

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close