জীবনধারাশরীর ও স্বাস্থ্যসোসিয়ালি ভাইরাল

ভার্জিন মহিলা এবং ভার্জিন পুরুষ চেনার উপায়

ভার্জিন মেয়ে বা ছেলে চেনার জন্য সাধারণত তেমন কোন লক্ষণ নেই। তবে মেয়েদের ক্ষেত্রে যোনী এবং স্তন দেখে মোটামুটি ভার্জিন মেয়ে চেনা যায়। তবে অনেক মেয়ের বংশগত ভাবেই স্তন বড় থাকে। এমনও ঘটনা দেখা গেছে যে, একটি মেয়ের স্তন বেশ বড়, কিন্তু কোন ছেলেকে কিস করা তো দূরের কথা, কখনো হস্তমৈথুন এবং সেক্স পর্যন্ত করেনি।

তার মানে কী এই দাড়াঁবে যে, মেয়েটি ভার্জিনিটি হারিয়েছে? মোটেই নয়। আবার এমনও ঘটনা রয়েছে যে, কোন মেয়ে তার জীবনে প্রথম সেক্স করেছে, কিন্তু কোন রক্তপাত হয়নি। তার মানে কিন্তু এই নয় যে, আপনার আগে কোন পুরুষ তার ভার্জিনিটি নিয়েছে। তবে আসলেই ভার্জিন মেয়ে চেনার তেমন কোন লক্ষণ নেই। তবুও নিম্নে যোনী এবং স্তন দেখে ভার্জিন মেয়ে চেনার কয়েকটি লক্ষণ তুলে ধরা হলোঃ

যোনীঃ

ল্যাবিয়া মেজরা অর্থাৎ বাইরের পাপড়ি প্রায় সম্পূর্ণ ভাবে একসাথে লেগে থাকবে এবং যোনীমুখ দেখা যাবেনা।
ল্যাবিয়া মাইনরা অর্থাৎ ভিতরের পাপড়িও সম্পূর্ণভাবে বন্ধ থাকবে এবং ল্যাবিয়া মেজরা দিয়ে ঢাকা থাকবে পুরোটাই। ল্যাবিয়া মেজরা না সরালে দেখা যাবেনা।হাইমেন অর্থাৎ সতিচ্ছেদ অক্ষত থাকবে। যদিও অনেক কারনেই ছিঁড়ে যেতে পারে। এটি ছিঁড়লে সাধারণত রক্তক্ষরণ হয়। ল্যাবিয়া মাইনরার নিচের প্রান্ত একত্রে থাকবে। ক্লাইটরিস/ক্লিটোরিস খুব ছোট এবং এর আবরণকারী চামড়াও পাতলা হবে। যোনীপথ সরু এবং ভিতরের ভাঁজগুলি কম মসৃণ হবে। ভাজ অনেক বেশি হবে।

স্তনঃ

স্তন ছোট হবে। চ্যাপ্টা হবে, গোল নয়। দৃঢ় হবে, তুলতুলে নয়। নিপলের চারপাশে যে গাঢ় অংশ থাকে তার রঙ গোলাপি থেকে হালকা বাদামী রঙ এর মতো হবে (কম গাঢ় রঙ হবে) এবং এই অংশ আয়তনে ছোট হবে। নিপলের আকার ছোট হবে।

সিউডোভারজিনঃ
অনেক সময় অনেক মেয়ের কয়েকবার যৌনমিলনের পরেও হাইমেন বা সতীচ্ছদ অক্ষত থাকে। এদের সিউডোভারজিন বা নকল ভার্জিন বলা হয়। তবে এর হার অনেক কম। সাধারণত এভাবেই একটা মেয়ের ভার্জিনিটি চিহ্নিত করা যায়। তবে যেসব মেয়ে বেশি খেলাধুলা/ শরীরচর্চা করে, সাইকেল/মোটরসাইকেল চালায়, ঘোড়ায় চড়ে এবং হস্তমৈথুন করে তাদের হাইমেন বা সতীচ্ছদ ছিঁড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা বেশি।

ভার্জিন ছেলে চেনার লক্ষণ:

সাধারণত ভার্জিন ছেলে চেনারও তেমন কোন লক্ষণ নেই। একটি ছেলে বিয়ের আগে যতই সেক্স করুক না কেন, সেই ছেলে ভার্জিন কিনা তা বোঝার উপায় নেই। তাই সমাজে কখনোই ছেলেদের ভার্জিনিটি নিয়ে কোন প্রশ্ন ওঠে না। তবুও নিম্নে ভার্জিন ছেলে চেনার কয়েকটি উপায় দেয়া হলোঃ

ছেলেটি অল্পতেই প্রচন্ড উত্তেজিত হয়ে যাবে। সেক্স করার জন্য অনেক তাড়া থাকবে। দ্রুত বীর্যপাত হবে, এমনকি যোনীতে পুরুষাঙ্গ ঢুকানোর আগেই বীর্যপাত হতে পারে।

কিস করা, ব্রেস্ট নিয়ে খেলা করার দিকে নজর না দিয়ে যোনীতে পুরুষাঙ্গ প্রবেশ করানোর জন্য পাগল থাকবে।

ছেলেটি মেয়েটির শরীর স্পর্শ করতে লজ্জা পাবে। যদি ছেলেটি মেয়েটিকে একবার স্পর্শ করে, তাহলে পাগলের মতো স্পর্শ করতে থাকবে।

ছেলেটি মেয়েটির সাথে শারীরিক সম্পর্ক শুরু করার আগে মেয়েটির অনুমতি নেবে।

উপরোক্ত বিষয়গুলো যদি কোন ছেলের মধ্যে শারীরিক সম্পর্ক শুরু করার ক্ষেত্রে দেখা যায়, তাহলে ছেলেটিকে আপাতদৃষ্টিতে ভার্জিন বলা যায়। তবে কোন ছেলের ভার্জিনিটি আছে নাকি নেই, তা বোঝার কোন উপায় নেই।

Tags
Show More
BLW Artcl

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close